করোনা মহামারির মধ্যেও দফায় দফায় বাড়ছে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ। সোমবার (১৭ আগস্ট) আরেকটি মাইলফলক অতিক্রম করে বিদেশি মুদ্রার রিজার্ভ দাঁড়িয়েছে ৩৮ বিলিয়ন ডলার। কোরবানির ঈদের পরও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্স উর্ধ্বগতিতে রয়েছে। বাংলাদেশের ইতিহাসে যা সর্বোচ্চ রিজার্ভের রেকর্ড।

রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়া আর রপ্তানির স্থবিরতা কমায় গত দেড় মাসে ৪০০ কোটি ডলার বৈদেশিক মুদ্রা যোগ হয়েছে রিজার্ভে। প্রতি মাসে ৪ বিলিয়ন ডলার আমদানি ব্যয় হিসেব করে এই রিজার্ভ দিয়ে প্রায় সাড়ে নয় মাসের আমদানি ব্যয় মেটানো সম্ভব। আন্তর্জাতিক মানদন্ডে তিন থেকে চার মাসের আমদানি ব্যয় মেটানোর সক্ষমতাকেই অর্থনীতির জন্য ইতিবাচকভাবে দেখা হয়।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, মাত্র দেড় মাসের ব্যবধানে রিজার্ভ পাঁচ বার রেকর্ড গড়েছে। গত ৩ জুন বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো রিজার্ভ ৩৪ বিলিয়ন ডলার ছাড়ায়। তিন সপ্তাহের ব্যবধানে ২৪ জুন সেই রিজার্ভ আরও বেড়ে ৩৫ বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করে। ৩০ জুন রিজার্ভ ছাড়ায় ৩৬ বিলিয়ন ডলার । এক মাস পর ২৮ জুলাই রিজার্ভ ৩৭ বিলিয়ন ডলারের ঘরও অতিক্রম করে।