সম্প্রতি প্রেমিকের সঙ্গে বাগদান সেরেছেন ছোটপর্দার অভিনেত্রী-মডেল ফারিয়া শাহরিন। রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে আংটি বদল করেন তিনি। পাত্র মুনিম মাহফুজ রিয়ান একটি কুরিয়ার সার্ভিসের কর্মকর্তা। ২০০৭ সালে ‘লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার’ প্রতিযোগিতায় প্রথম রানারআপ হয়েছিলেন ফারিয়া শাহরিন। মুঠোফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বাংলালিংকের ‘কথা দিলাম’ প্যাকেজের বিজ্ঞাপনচিত্র তার পরিচিতি বাড়িয়ে দেয় অনেকগুণ। সর্বশেষ কাজল আরেফিন অমির ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’ নাটকে অন্তরা চরিত্রে অভিনয় করে আলোচিত হন ফারিয়া।

আজকাল প্রায়ই নানারকম ছবি ও ভিডিও শেয়ার করে তিনি ক্যাপশনে নিজেকে অন্তরা হিসেবে উপস্থাপন করেন। বলার অপেক্ষা রাখে না, তুমুল জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘ব্যাচেলর পয়েন্ট’-এর ভক্তরা সেইসব ছবি ও ক্যাপশন বেশ উপভোগ করেন। বুধবার দুপুরে সোশ্যাল মিডিয়া ফেসবুকে কয়েকটি ছবি পোস্ট করে শেষ বসন্তে রীতিমতো  উত্তাপ ছড়ালেন। যদিও সমুদ্র পাড়ে প্রাকৃতিক উত্তাপ রয়েছে কি-না জানা যায়নি, ফারিয়ার ছবিগুলো সোশ্যাল হ্যান্ডেলে উত্তাপ ছড়িয়েছে ঠিকই।

ফারিয়া শাহরিনকে দেখে তার ভক্তরা লিখছেন মজার মজার সব মন্তব্য। অনেকে অন্তরাকে ‘আগুন’, ‘অ্যাটম বোম’ বলে মত প্রকাশ করছেন। তবে ছবি পোস্ট করেই হাওয়া ফারিয়া। কে কি লিখছেন সেসবে মনযোগ নেই তার। তবে একটি সূত্র জানিয়েছে ছবিগুলো পূর্বের। পূর্বের ছবি মাঝেমধ্যেই পোস্ট করে থাকেন তিনি। মালদ্বীপে নয়, ঢাকাতেই রয়েছেন তিনি।

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে এই তারকার বাগদান সম্পন্ন হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেছেন বরের সঙ্গে আংটি পরা ছবিও।  ফারিয়া শাহরিন মালয়েশিয়া থেকে উচ্চশিক্ষা শেষ করে কিছুদিন আগেই স্থায়ীভাবে দেশে ফিরেছেন। ফিরেই কাশ্মীরি প্রেমিকা নামের একটি নাটকে কাজ করে বেশ আলোচিত হন। এরপর পুরোদমে মিডিয়ায় কাজ করছেন। দেশে করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর ঘরবন্দি ছিলেন।

একটি দৈনিকে সাক্ষাৎকারের জেরে সহকর্মীদের তোপের মুখে পড়েছেন ফারিয়া শাহরিন। ফেসবুকে একের পর এক স্ট্যাটাস দিয়েও এ ক্ষোভ তিনি দমাতে পারছেন না। বরং তর্ক আরও বাড়ছে। সহকর্মীদের সঙ্গেও সরাসরি বিরোধে জড়াচ্ছেন ফারিয়া। কাজে কেন নিয়মিত নন জানতে চাইলে ফারিয়া অভিযোগের আঙুল তুলেছিলেন সহকর্মী, প্রযোজকদের বিরুদ্ধে। তাদের নানা কুপ্রস্তাবের জন্যই নাকি তিনি নিয়মিত হতে পারছেন না।

ফারিয়ার বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় ফেসবুকে অভিনেত্রী কবির তিথি লিখেছেন, মিডিয়ায় কাজ করে মিডিয়ার বদনাম করার মানেটা বুঝলাম না… মিডিয়া যদি এত খারাপই হয় আসছেন কেন…? মিডিয়ার সবাই যদি খারাপ হতো তাহলে তো কোন মেয়েই কাজ করতে পারতো না।

অভিনেত্রী নাফিজা জাহান তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ফারিয়া শাহরিনের দেয়া বক্তব্যে। নাফিজা ভিডিওবার্তায় বলেন, মিডিয়াতে কাজ করেছেন। কিন্তু এখন আপনাকে কেউ কাজে নেয় না। আর এজন্য আপনি মিডিয়াকে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দিবেন? আর নিজেকে সতী সাবিত্রী ভেবে নিজেকে দুধে ধোয়া তুলসি পাতা বানায়া ফেলবেন। আপনি দুধে ধোয়া তুলসি পাতা না। আপনি যদি দুধে ধোয়া তুলসি পাতা হতেন তবে মিডিয়া নিয়ে মানুষের সামনে এতটা খারাপভাবে বলতে পারতেন না।

এদিকে কেউ কেউ এটাও বলছেন শাকিব খানের উচিত ফারিয়ার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করা। কারণ সেই সাক্ষাৎকারে ঢালিউডের শীর্ষ অভিনেতা শাকিব খানকে নিয়েও তীর্যক মন্তব্য করেছেন ফারিয়া। তিনি বলেছেন, তার সঙ্গে কাজ করতে অনেক ‘স্যাক্রিফাইস’ করতে হয়। এজন্য ছবিরও কাজও ছেড়ে দেন। পরে এ নিয়ে কঠোর সমালোচনা শুরু হলে ফেসবুকে আলাদা করে স্ট্যাটাস দেন ফারিয়া। তাতে ফারিয়া লিখেন, দেশের মানুষ শাকিব খানকে কতটা ভালোবাসে সেটা বুঝলাম। দেশের মানুষের হিরো শাকিব খান। আমি বলিনি সে আমাকে ডিরেক্ট কোনো নোংরা অফার দিয়েছে। আমাকে মিডিয়ার মানুষজনই বলেছিল এসব এবং সেটা বিশ্বাস করেছি দ্যাটস ইট।

তারপরও সমালোচনা থেমে থাকেনি। ফারিয়া এবার সহকর্মীদের ওপর সরাসরি অভিযোগ এনেছেন। মৌসুমী হামিদের বিরুদ্ধে মিথ্যা বলার অভিযোগ এনেছেন। তার সঙ্গে ব্যক্তিগত কথাবার্তা ফেসবুকে স্ক্রিনশট হিসেবে প্রকাশ করে দিয়েছেন। মৌসুমী হামিদ পরে ফারিয়াকে নিয়ে প্রকাশ হওয়া একটি খবরের লিংক ফারিয়ার পোস্টে মন্তব্য হিসেবে দিয়েছেন। যার উত্তরে ফারিয়া বলেছেন, মিথ্যা বলেছো সেটা স্বীকার করো।