চতুর্থ ইনিংসে প্রায় চার শ রান করা বিশ্বের যে কোনো দলের জন্যই কঠিনতম কাজ। চারদিন খেলা শেষে উইকেট ক্ষতবিক্ষত হয়ে যায়। তার ওপর স্পিন ট্র্যাকে রাজত্ব করেন বোলাররা। উইন্ডিজ দলটিতে বড় কোনো তারকা নেই। নতুনদের নিয়ে তারা টেস্ট খেলতে এসেছে। তিন জনের অভিষেক হয়েছে চট্টগ্রামে। কিন্তু সব হিসেব উল্টে দিয়ে বাংলাদেশকে আজ তারা ৩ উইকেটে হারিয়ে দিয়েছে! প্রায় অসম্ভব কাজটি সম্ভব করে ফেলেছে খর্বশক্তির উইন্ডিজ।

জয়ের জন্য ৩৯৫ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নেমে গতকাল ৩ উইকেটে ১১০ রান তুলে তারা গতকাল চতুর্থ দিন শেষ করেছিল। আজ পঞ্চম দিনের ভয়ংকর উইকেটে ব্যাটিং করতে তাদের ২৮৫ রান করতে হতো। যা সাদা চোখে প্রায় অসম্ভব ব্যাপার। কিন্তু নবীন দলটির সামনে বাংলাদেশি বোলাররা যেন আজ বোলিং ভুলে গেলেন। অভিষিক্ত কাইল মেয়ার্স তুলে নিয়েছেন সেঞ্চুরি। আরেক অভিষিক্ত ব্যাটসম্যান একনক্রুমা বোনারের সঙ্গে তিনি ২০৭ রানের জুটি উপহার দিয়েছেন। ক্রিকেটারের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ জুটি। ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে সর্বোচ্চ। তাছাড়া চতুর্থ ইনিংসে দুই অভিষিক্ত ক্রিকেটারের সেরা জুটি।

এনক্রুমা বোনার আউট হয়েছেন ২৪৫ বলে ৮৬ রান করে। এখন দেখার বাংলাদেশের পরিণতি কী হয়। তাকে এলবিডাব্লিউ করে এই বিশাল জুটি ভেঙেছেন তাইজুল ইসলাম। এর কিছু পরেই ব্ল্যাকউডকে বোল্ড করে দেন নাঈম হাসান। কিন্তু জসুয়া ডি সিলভাকে সঙ্গী করে বাংলাদেশি বোলারদের ওপর স্টিম রোলার চালিয়ে যাচ্ছিলেন মেয়ার্স। একের পর এক বল তার ব্যাটের আঘাতে বাতাসে ভেসে সীমানার বাইরে চলে যাচ্ছিল। শেষ পর্যন্ত ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন মেয়ার্স!

মেয়ার্সের ডাবলের পর জসুয়া ডি সিলভাকে (৫৯ বলে ২০) বোল্ড করে জুটি ভাঙেন তাইজুল। তখন উইন্ডিজ জয় থেকে মাত্র ৩ রান দূরে। শেষদিকে একটু বেকায়দায় পড়ে যায় ক্যারিবীয়রা। কেমার রোচকে (০) ফেরত পাঠান মিরাজ। উইকেটে আসেন তারকা স্পিনার রাকিম কর্নওয়াল। তবে সব শংকা উড়িয়ে উইন্ডিজ ৩ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয়। ৩১০ বলে ২১০* রানে অপরাজিত থাকেন কাইল মেয়ার্স। তার ইনিংসে ছিল ২০টি চার এবং ৭টি ছক্কা।

Making nearly four hundred runs in the fourth innings is the hardest task for any team in the world. At the end of four days of play, the wicket was injured. The bowlers ruled over him in the spin track. There are no big stars in the Windies team. They have come to play Tests with newcomers. Three people have made their debut in Chittagong. But by reversing all the calculations, they have lost to Bangladesh by 3 wickets today! The almost impossible task has been made possible by the powerless Windies.

Chasing the target of 395 runs to win, they finished the fourth day with 110 runs for 3 wickets. They had to score 265 runs to bat on the fifth day. Which is almost impossible with white eyes. But in front of the new team, Bangladeshi bowlers seem to have forgotten to bowl today. Inaugurated Kyle Meyers picked up the century. He has given a pair of 206 runs with another debutant batsman Eknakruma Bonner. Cricketer’s second highest pair. Highest for West Indies. Moreover, the best pair of two debutant cricketers in the fourth innings.

Enkruma Bonner was dismissed for 7 off 245 balls. Now let’s see what happens to Bangladesh. Taizul Islam broke this huge partnership by making him lbw. Shortly after that, Naeem Hasan bowled Blackwood. But Meyers was continuing the steam roller on the Bangladeshi bowlers with Joshua de Silva. One by one the ball was floating in the air with the blow of his bat and going out of bounds. Meyers finally scored a double century!

After Meyers’ double, Taizul broke the tie by bowling Joshua de Silva (20 off 59 balls). Then the Windies were just 3 runs away from victory. In the end, the Caribbean fell into disarray. Miraj sent Kemar Roach back (0). Star spinner Rakim Cornwall came on the wicket. However, the Windies won the match by 3 wickets. Kyle Meyers remained unbeaten on 210 * off 310 balls. He had 20 fours and 6 sixes in his innings.